1. admin@pathagarbarta.com : admin :
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৭:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আন্দোলনের নামে মুক্তিযুদ্ধের অবমাননাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি একাত্তরে বাংলাদেশে গণহত্যার ন্যায়বিচার ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য বিশ্বের বিশিষ্টজনদের আহবান দুই বঙ্গকন্যা ব্রিটিশ মন্ত্রীসভায় স্থান পাওয়াতে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের আনন্দ সভা ও মিষ্টি বিতরন যৌন প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার নেটওয়ার্ক নিয়ারস্ নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত অনুবাদক অধ্যক্ষ মোঃ কোরেশ খান এবং গবেষক ও ড.রণজিত সিংহের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত সাংবাদিক শাহাব উদ্দিন বেলালকে স্মরণ ও স্মারক প্রকাশনা অনুষ্ঠিত সিলেটের মেয়রের কাছে আলতাব আলী ফাউন্ডেশনের স্মারকলিপি প্রদান মুক্তিযুদ্ধ আমার অহংকার- দেবেশ চন্দ্র সান্যাল বৃটেনের কার্ডিফ বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের উদ্দ্যোগে ঈদ পূনর্মিলনী অনুষ্ঠিত অনলাইন সাহিত্য গ্রোপের ঈদ পুনর্মিলনী

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে নিমন্ত্রণ পাননি প্রতিষ্ঠাতা পরিবারের কেউ

পাঠাগার বার্তা
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৩১৫ বার পঠিত

পাঠাগার বার্তা ডেস্ক : জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ১৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আগামী ২০ অক্টোবর। তবে ওই দিন সরকারি ছুটি থাকায় একদিন আগেই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। তবে দেশের অন্যতম সেরা এ উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে জমি দানকারী জমিদার জগন্নাথ রায় চৌধুরীর বংশধরদের বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে নিমন্ত্রণ জানানো হয়নি।

রাজধানীর রায়ের বাজারে থাকেন জগন্নাথ রায় চৌধুরীর শেষ বংশধর কালিশঙ্কর রায় চৌধুরী। তিনি জগন্নাথ রায় চৌধুরীর ছেলে কিশোরীলাল রায় চৌধুরীর নাতির ছেলে। কথা হয় কালিশঙ্কর রায় চৌধুরীর স্ত্রী ভারতী রায় চৌধুরীর সঙ্গে। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে আমাদের ডাকা হয়নি। আমার জামাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী। তাকেও কোনো নিমন্ত্রণ জানানো হয়নি। অথচ আমার স্বামীর দাদার বাবা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে জমি দান করেছিলেন। আমরা ছাড়া ঢাকায় জমিদারের বংশের কেউ নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো অনুষ্ঠানে আমাদের বর্তমানে ডাকা হয় না।

এদিকে সর্বশেষ ২০১৯ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে জমিদারের বংশধর হিসেবে বিশেষ মর্যাদা না পেলেও শুধুমাত্র ডাক পান কালিশঙ্কর ও তার স্ত্রী। তারা সমাবর্তনে যান। তৎকালীন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তাদের ডেকেছিলেন কথা বলার জন্য। কিন্তু অসুস্থতার জন্য দ্রুত পৌঁছাতে পারেনি বলে আক্ষেপ করেন কালিশঙ্করের স্ত্রী ভারতী রায়। তবে ১৯৯২ সালে জগন্নাথ কলেজের শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন অনুষ্ঠানে পরিবারসহ ডাক পান কালিশঙ্কর রায় চৌধুরী। দেওয়া হয় বিশেষ মর্যাদা।

এদিকে একসময়ের প্রতাপশালী জমিদারের বংশধর কালিশঙ্কর রায় চৌধুরীর জীবন কাটছে দুর্দশায়। এ দেশের শিক্ষা বিস্তারে নিঃস্বার্থে কিশোরীলাল নিজের নামে কিশোরীলাল জুবিলি স্কুল ও তার বাবা জগন্নাথ রায়ের নামে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (তৎকালীন স্কুল) জমি দেন। অথচ জীবন জীবিকার টানে বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়েই চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী হিসেবে কাজ করছেন কিশোরীলালের বংশধরের জামাতা। ছেলে না থাকায় সংসার চালানোর একমাত্র অবলম্বন বৃদ্ধ কালিশঙ্করের জামাতা বিপ্লব সাহা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী হিসেবে নিয়োজিত। তবুও সে চাকরি অস্থায়ী।

কালিশঙ্করের স্ত্রী ভারতী রায় চৌধুরী বলেন, আমরা অর্থ সম্পদ চাই না। শুধু সম্মানটুকু চাই। জগন্নাথ কলেজ আমলে আমাদের ডাকা হতো। জুবিলি স্কুল থেকেও ডাকা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন দিবসে আমাদের ডাকলে ভালো লাগবে। এছাড়া আমার জামাতার চাকরি স্থায়ী হয়ে গেলে আমরা বৃদ্ধ বয়সে শান্তি পাব।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, বালিয়াটির এক সময়ের প্রতাপশালী জমিদার ও ব্রিটিশ সরকার থেকে রায় খেতাবপ্রাপ্ত কিশোরীলাল রায় চৌধুরী এ দেশের শিক্ষা বিস্তারের জন্য ১৮৬৮ সালে তার বাবা জগন্নাথ রায়ের নামে স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। এরপর কলেজ, তারপর ২০০৫ সালে আইন পাশের মাধ্যমে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপ নেয়। ১৮ বছরের যৌবন পার হতে চলা এই বিশ্ববিদ্যালয়টিতে বর্তমানে ২০ হাজার শিক্ষার্থী, ৮০০ শিক্ষক রয়েছেন। বিসিএস, ব্যাংক, জুডিশিয়ারি, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ প্রতি প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এগিয়ে থাকেন। নানা গবেষণায়ও এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা কৃতিত্ব দেখাচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

error: Content is protected !!