1. admin@pathagarbarta.com : admin :
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৬:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আন্দোলনের নামে মুক্তিযুদ্ধের অবমাননাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি একাত্তরে বাংলাদেশে গণহত্যার ন্যায়বিচার ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য বিশ্বের বিশিষ্টজনদের আহবান দুই বঙ্গকন্যা ব্রিটিশ মন্ত্রীসভায় স্থান পাওয়াতে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের আনন্দ সভা ও মিষ্টি বিতরন যৌন প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার নেটওয়ার্ক নিয়ারস্ নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত অনুবাদক অধ্যক্ষ মোঃ কোরেশ খান এবং গবেষক ও ড.রণজিত সিংহের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত সাংবাদিক শাহাব উদ্দিন বেলালকে স্মরণ ও স্মারক প্রকাশনা অনুষ্ঠিত সিলেটের মেয়রের কাছে আলতাব আলী ফাউন্ডেশনের স্মারকলিপি প্রদান মুক্তিযুদ্ধ আমার অহংকার- দেবেশ চন্দ্র সান্যাল বৃটেনের কার্ডিফ বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের উদ্দ্যোগে ঈদ পূনর্মিলনী অনুষ্ঠিত অনলাইন সাহিত্য গ্রোপের ঈদ পুনর্মিলনী

নিশ্চয়ই স্বীয় মানবিক বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বৃদ্ধি করবেন

পাঠাগার বার্তা
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২ জুলাই, ২০২৩
  • ১৪৯ বার পঠিত

নিশ্চয়ই স্বীয় মানবিক বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বৃদ্ধি করবেন

আবীর আহাদ

অধিকাংশ বীর মুক্তিযোদ্ধা জীবনযন্ত্রণায় ছটফট করছেন। একদিকে বর্তমানে তাঁরা বয়সের ভারে একেবারেই নুয়ে পড়েছেন, নানান জটিল রোগে আক্রান্ত, চিকিৎসার অভাব, দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধগতিতে সংসার অচল, দারিদ্র্যতার কষাঘাতে জীবন পর্যুদস্ত—-অন্যদিকে তাঁদের প্রতি এক শ্রেণীর রাজনৈতিক ও প্রশাসনিকশক্তির সীমাহীন অবজ্ঞা অবহেলা ও চক্রান্তের ফলে তাঁরা যেমন তাঁদেরই শৌর্য ত্যাগ রক্ত ও বীরত্বে অর্জিত দেশে চাকরি, ব্যবসা ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত হতে পারেননি, তদ্রূপ তাঁদের সন্তানদের জীবনেও একই পরিণতি ঘটেছে! এ অবস্থার ফলশ্রুতিতে বঙ্গবন্ধু-কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বদান্যতায় মাত্র ২০০০০|= টাকার ভাতার ওপর অধিকাংশ বীর মুক্তিযোদ্ধার বিরাট পরিবারের ভরণপোষণ নির্ভর করছে। এ দুর্বিসহ জীবন যন্ত্রণায় কাতর হয়ে তারা শারীরিকভাবে অসুস্থ হওয়ার পাশাপাশি মানসিকভাবে পর্যুদস্ত হয়ে পড়েছেন। চরম শারীরিক ও মানসিক চাপে তাইতো প্রতিদিন বেশকিছু বীর মুক্তিযোদ্ধা মরণ সাগরে ডুবে যাচ্ছেন!

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের এহেন জীবনযযন্ত্রণার সকরুণ অবস্থা নিশ্চয়ই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অজানা নয়। দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধগতিতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে, এটা তিনিও তার সহজাত সরলতায় স্বীকার করেছেন। ইতোমধ্যে করনাকালে ও দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধগতিতে ক্ষতিগ্রস্তদের, বিশেষ করে ব্যবসায়ী, সরকারি কর্মচারী ও শ্রমিকদের নানান সুযোগ সুবিধা দিয়েছেন, কিন্তু জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারা সেসব সুযোগ সুবিধা পেয়েছেন বলে আমাদের জানা নেই।

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা দেয়া হয় সামাজিক নিরাপত্তা খাত থেকে বলে আমরা জানি। বঙ্গবন্ধু-কন্যার আওয়ামী লীগ সরকার চলতি বাজেটে অতিরিক্ত বেশ কয়েক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। ইতোমধ্যে সরকার সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির বিষয়ে একটা প্রচ্ছন্ন ইংগীত দিয়েছেন। সরকারের এধরনের ঘোষণায় সীমাহীন জীবনযন্ত্রণায় ক্ষতবিক্ষত বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাজে তাদের ভাতা বৃদ্ধির বিষয়ে প্রচণ্ড আশাবাদী হয়ে উঠেছে। এমতাবস্থায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জাতীয় মর্যাদা সমুন্নত রাখার জন্যে এবং তাদের জীবনের যন্ত্রণাময়তা মোচনের লক্ষ্যে বর্তমান বাজারমূল্যের সাথে সংগতি তাদের মাসিক ভাতা ও অন্যান্য বোনাস বৃদ্ধি করার জন্য আবেদন জানাচ্ছি। আমরা নিশ্চয়ই আশা করতে পারি যে, বঙ্গবন্ধু-কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তাঁর স্বভাবগত মানবিক বিবেচনায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের উপরোক্ত বিষয়ের ওপর যথাযথ দৃষ্টিপাত করে কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

লেখক : চেয়ারম্যান, একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

error: Content is protected !!