1. admin@pathagarbarta.com : admin :
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কোটা সংস্কারের আন্দোলন ঘিরে গৃহযুদ্ধ সৃষ্টির ষড়যন্ত্র চলছে- ছাত্র প্রতিনিধিদের সঙ্গে নির্মূল কমিটির যৌথ সভা কোটা আন্দোলনকারীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী স্লোগানের নিন্দা জানিয়েছে জাস্টিস ফর বাংলাদেশ জেনোসাইড ১৯৭১ ইন ইউকে সমাজকর্মী আনসার আহমেদ উল্লাহকে বঙ্গবন্ধু পরিষদের সংবর্ধনা আন্দোলনের নামে মুক্তিযুদ্ধের অবমাননাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি একাত্তরে বাংলাদেশে গণহত্যার ন্যায়বিচার ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য বিশ্বের বিশিষ্টজনদের আহবান দুই বঙ্গকন্যা ব্রিটিশ মন্ত্রীসভায় স্থান পাওয়াতে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের আনন্দ সভা ও মিষ্টি বিতরন যৌন প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার নেটওয়ার্ক নিয়ারস্ নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত অনুবাদক অধ্যক্ষ মোঃ কোরেশ খান এবং গবেষক ও ড.রণজিত সিংহের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত সাংবাদিক শাহাব উদ্দিন বেলালকে স্মরণ ও স্মারক প্রকাশনা অনুষ্ঠিত সিলেটের মেয়রের কাছে আলতাব আলী ফাউন্ডেশনের স্মারকলিপি প্রদান

প্রসঙ্গ: মুক্তিযোদ্ধা নেতাদের নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান

পাঠাগার বার্তা
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৪ মে, ২০২৩
  • ১০৮ বার পঠিত

প্রসঙ্গ: মুক্তিযোদ্ধা নেতাদের নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান
আবীর আহাদ

আমি কোনো নেতা নই। সাধারণ মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে আমার অবস্থান। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অনেক বড়ো বড়ো নেতা আছেন। অনেকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের চেয়ারম্যান ছিলেন, সামনে আবার চেয়ারম্যান হবার স্বপ্ন দেখেন। কিন্তু সবাই বুকে হাত দিয়ে বলুন তো, একবারের জন্য কি সেসব নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যানরা মুক্তিযোদ্ধাদের দু:খ ব্যথা হতাশা ও কান্নার কথা কোথাও তুলে ধরেছেন কিনা?একটিবার কি কোনো সান্ত্বনা বাণী উচ্চারণ করেছেন বা করেন কিনা?

আমি তো করে যাচ্ছি। অনেকেই করেছেন। করছেন। নিরন্তর তাদের জাতীয় মর্যাদা, আশা-আকাঙ্খা, দাবি-দাওয়া নিয়ে পদযাত্রা, সেমিনার, আলোচনা সভা, সংবাদ সম্মেলন, স্মারকলিপি পেশ ইত্যাদি কর্মসূচির পাশাপাশি প্রচুর লেখালেখি ও সাংগঠনিক উপায়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে দেনদরবার করে আসছি। কর্তৃপক্ষ কিছু দাবি মেনেছেন, কিছু দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস দিয়েছেন। বলা চলে, প্রতিদিন প্রতিমুহূর্তে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নানান অভাব-অভিযোগ এবং দাবিদাওয়া তুলে ধরতে গিয়ে কর্তৃপক্ষের কারো কারো রোষানলে পড়েছি। তারপরও অনেকের ভ্রুকুটি উপেক্ষা করে বিরামহীন প্রচেষ্টা চালিয়েই যাচ্ছি।

এ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার পশ্চাতে বা সামনে সেসব বড়ো বড়ো নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যানরা যদি একটু সহযোগিতা করতেন, তাহলে সারা দেশের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে সংগ্রামী চেতনার উন্মেষ ঘটতো। এ প্রক্রিয়ায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের দাবিদাওয়া বিষয়ে ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করতেন। কিন্তু সকলই গরল ভেলো! সেসব বড়ো বড়ো নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যানরা সবাই নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান নিয়ে বুঁদ হয়ে বসে আছেন! প্রত্যাশা করছেন, কীভাবে যেনোতেনো উপায়ে কারো পৃষ্ঠপোষকতায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের চেয়ারম্যান হতে পারেন—-চলছে পর্দার অন্তরালে তারই প্রচেষ্টা। আমার বদ্ধমূল ধারণা, দেশের সচেতন ও শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারা এ বিষয়ে সম্যক জ্ঞাত আছেন।

লেখক : একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

error: Content is protected !!